শীতের কনকনে সকাল ৷ কটা বাজে তখন? খেয়াল নেই ৷ সমুদ্রের কাছে গেলে অমনই হয় ওর ৷ সময় জ্ঞান হারিয়ে ফেলে ৷ আর কেনই বা এমন হবে না ৷ সমুদ্রের বিশালতা সামনে গেলে ও, সব ভুলে যায় ৷ না না ভুলে যায় বললে ভুল হবে ৷ বরং বলতে হবে বর্তমান ভুলে যায় ৷ মনের গভীরে লুকিয়ে থাকা স্মৃতির অলি-গলি ধরে হাটতে শুরু করে ৷ কত শত চিন্তা ভাবনা কত সুখ কত হাসি কত কান্নার স্মৃতি যে জড়ো হয় তার কোনও সীমানা নাই ৷ ঠিক যেমন সমুদ্রের ও কোনও সীমানা নাই ৷

হঠাৎ মোবাইলটা বেজে উঠল ৷ ওটা ধরার ইচ্ছে নেই ৷ কিন্তু এই যন্ত্র টি নাছোড়বান্দা ৷ ভুল বললাম ৷ যন্ত্রের আর কি দোষ ৷ এর অপর প্রান্তের মানুষ গুলোই এমন ৷ ফোন আসতেই থাকল ৷ কিন্তু ওর মাঝে কোনও ব্যস্ততা নেই ৷ যেন ভাব-লেশ হীন একটা মানুষ দু হাটুকে হাত দিয়ে পেঁচিয়ে বসে আছে সেই ভোর থেকে ৷ গত কিছু দিনের ঘটনা গুলো মনে খুব দোলা দিচ্ছে ৷ সেই জন্যেই এই ব্যবস্থা ৷ বর্তমানকে ভুলে অনেক পুরনো দিনে ফিরে গেছে  ও ৷ কখনো নো  যদি বর্তমানকে ভুলতে ইচ্ছে হয় তার চেয়ে ভাল পদ্ধতি হয়তো নেই ৷ নিজের মাঝে হারিয়ে যাওয়ায় মনে হয় সব চেয়ে আনন্দের ৷ কখন মনের স্মৃতির অলিগলি ধরে কোন পথে যেয়ে কোথায় থামবেন , হাসবেন কি কাঁদবেন কখনো বলতে পারবেন না ৷ যেন একটি থ্রিলার মুভি ৷ আপনি জানেন এদের মধ্যেই কেউ কিন্তু জানেন না কে সে ৷

ফোনটা বাজতে বাজতে বন্ধ হয়ে গেল ৷ পকেট থেকে ফোনটা বের করল ৷ মনে মনে হাসল ৷ মানুষ কত বিচিত্র ৷ এতক্ষণ ফোন টা আর্তনাদ করল রিসিভ করার জন্যে ৷ অপর প্রান্ত থেকে কেউ অধীর আগ্রহে বসে ছিল ফোনটা ধরবে বলে ৷ আর এখন ? এখন কেউ অপেক্ষায় নেই ! আর এখন কিনা ও ফোনটা বের করল ৷ ফোনটার দিকে তাকিয়ে অবাক না হয়ে পারলোই না ও ৷ অনেক গুলো মিসড কল ৷ আর একটা ম্যাসেজ ৷ ম্যাসেজ এ লিখা ছিল “আমি জানি তুমি কে, তুমি শান্ত”

অবাক বিস্ময় এ তাকিয়ে থাকল শান্ত ৷ মানুষকে সারপ্রাইজ দেয়ায় ও ভীষণ ভালবাসে ৷ কিন্তু নিজে সারপ্রাইজ হতে না ৷ মানুষ যখন কষ্ট পায় তার নাকি বাম চোখ থেকে প্রথম অশ্রু ঝড়ে ৷ তথ্যটি আসলেই সত্য কিনা সন্দেহ ছিল শান্তর ৷ এখন আর নেই ৷ শেষ দেখা টা তাহলেই এভাবেই লিখা ছিল ! নিজের অজান্তেই শেষ বার এর মত সুন্দর মুখটা দেখেছিল ও ৷ চোখ দুটো বন্ধ করে সেই স্মৃতি মনের যে গলিতে আছে সে গলি খুঁজে পাওয়া যায় কিনা তার চেষ্টা করতে শুরু করল ৷ কে যানে এভাবে কত সময় বসে ছিল ৷ আমি জানি না, আপনারা হয়তো জানতেও পারেন ৷